নড়াইলে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে ঔদ্ধ্যত্যপূর্ণ বক্তব্যে এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি

130

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইল সদর উপজেলার আগদিয়া-শিমুলিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহাদ আলী মোল্যা মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে ঔদ্ধ্যত্যপূর্ণ কথাবার্তা বলেছেন। প্রধান শিক্ষক আহাদ আলী মোল্যা মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে ঔদ্ধ্যত্যপূর্ণ মন্তব্য করায় মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

 

জানাগেছে, গত মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারী) দুপুর ১২টার দিকে প্রধান শিক্ষকসহ কয়েকজন শিক্ষক বিদ্যালয়ের মাঠে মাঠে বসে রোদ পোহাচ্চিলেন। এসময় দুজন গণমাধ্যমকর্মী বিদ্যালয়ে বিনামুল্যে পাঠ্য বই বিতরণে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহের জন্য ওই স্কুলে যান।

আগদিয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা শহীদুর রহমানসহ অভিভাবকরা লিখিতভাবে অর্থ নেয়ার এই অভিযোগ করায় ঘটনাস্থলে গণমাধ্যমকর্মীরা পৌছানোর পর তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে অশালীণ কথাবার্তা বলেন।

প্রধান শিক্ষক আহাদ আলী মোল্যা, অভিযোগকারী মুুক্তিযোদ্ধা শাহীদুর রহমানসহ অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধার সম্পর্কে বলেন ‘‘এতো বড় মুক্তিযোদ্ধা, বিল্ডিং তিনবছর ধরে অকেজো হয়ে পড়ে আছে কিছু করতে পারে না, নিজিরা ইচ্ছা মতো আইন করে মুক্তিযোদ্ধা।বাল্ ছিড়া মুক্তিযোদ্ধারা। ৭১ সালের সময় আমি মোটামুটি বুঝি। এই জায়গায় যেসব নকশাল রাজাকার ছিল, সেইগুলো এখন বড় বড় মুক্তিযোদ্ধা হইছে, আর্মির বড় বড় প্রধান হইছে। স্যারেন্ডার হয়ে সব মেলেটারী হইছে। যারা মানুষের গলা কাইটে বেড়াইছে তারা হইছে বড় বড় মুক্তিযোদ্ধা’’।

এ ধরনের মন্তব্য মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ছড়িয়ে পড়লে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নড়াইল সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার এসএ বাকি ঔদ্ধত্যপূর্ণ এ ধরনের মন্তব্যের ঘটনায় ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনতিবিলম্বে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন। অন্যথায় পরবর্তী কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে বলে জানান।

তিনি কি স্বাধীনে দেশে বাস করছেন নাকি ভিন্ন কোন দেশে বাস করছেন? প্রশ্ন এলাকাবাসির।