শিশু ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড, সিলমোহর মন্ত্রিসভার

59

১২ বছর ও তার কম বয়েসীকে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড৷ এই আদেশে সিলমোহর দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। কাঠুয়া, উন্নাও-সহ একাধিক শিশু ধর্ষণকাণ্ডের পর সারা দেশেই কঠোর আইন প্রণয়নের দাবি উঠছিল৷

এরপরই সংশোধন আনা হল Protection of Children From Sexual Offences বা পকসো আইনে। উল্লেখ্য, শুক্রবারই কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছিল, পকসো আইনে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। সেইমতোই শনিবার ৭ নম্বর লোককল্যাণ মার্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠকে অর্ডিন্যান্সে অনুমোদন দেওয়া হয়। অর্ডিন্যান্সে ১২ বছরের নীচে শিশুকে ধর্ষণের অপরাধে মৃত্যুদণ্ডের সাজার কথা বলা হয়েছে। ১৬ বছরের নীচে মেয়েদের ধর্ষণের ক্ষেত্রেও জারি করা হয়েছে কঠোর শাস্তি। সর্বনিম্ন শাস্তি ২০ বছর করা হয়েছে।

সংশোধিত আইনে বলা হয়েছে, ১২ বছর ও তার থেকে কম বয়সী শিশুকে ধর্ষণের অপরাধে মৃত্যুদণ্ডের সাজা দেওয়া হবে। এতদিন ধর্ষণের শাস্তি ছিলো যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

এরআগে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও বার্তা দিয়েছিলেন, দেশকে আশ্বাস দিতে চাই, অপরাধীদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। কাউকে রেয়াত করা হবে না।”

পাশাপাশি দ্রুত তদন্ত ও বিচারের ব্যবস্থা শেষ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা। ধর্ষণের অপরাধীর ন্যূনতম সাজার মেয়াদ ৭ বছর থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ১০ বছর। তা যাবজ্জীবন হতে পারে। নির্যাতিতার বয়স ১২ বছরের নীচে হলে যাবজ্জীবন অথবা মৃত্যুদণ্ড।