কাঠুয়া কাণ্ডের প্রতিবাদ করে বিদ্রুপের মুখে করিনা, পালটা দিলেন স্বরা

33

কাঠুয়ায় আট বছরের আসিফাকে গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় উত্তাল হয়েছে গোটা দুনিয়া। সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে প্রতিবাদে সরব হয়েছেন ছবির দুনিয়ার তারকারাও। প্ল্যাকার্ড হাতে ছবি পোস্ট করে স্বরা ভাস্কর, সোনম কাপুররা জানিয়েছেন, তাঁরা লজ্জিত, ক্ষুব্ধ এবং যে কোনও মূল্যে আসিফার সুবিচার চান। আর এমন স্লোগানে শামিল হয়েই নেটিজেনদের বিদ্রুপের মুখে পড়তে হল করিনা কাপুরকে।
সোশ্যাল মিডিয়ায় হাতে প্ল্যাকার্ড ধরে আসিফার জন্য সরব হয়েছিলেন বলিউড অভিনেত্রী করিনা। আর তখনই সমাজের কিছু হীনমন্য মানুষ মাথা চাড়া দিয়ে উঠল। যাঁরা কাঠুয়া কাণ্ডের নৃশংসতাকে খাটো করে করিনার ব্যক্তিগত জীবনে উঁকি দিতে বেশি আগ্রহ দেখাল। করিনাকে একহাত নেয় এক নেটিজেন। তার বক্তব্য, একজন হিন্দু হয়ে মুসলিম পরিবারে বিয়ে করা করিনার মোটেই উচিত হয়নি। তার উপর তাঁর একটি ছেলেও রয়েছে। যাঁর নাম আবার অত্যাচারী তৈমুরের নামে রাখা হয়েছে। মুসলিমকে বিয়ে করার জন্য করিনার লজ্জিত হওয়া উচিত। তবে করিনা এসব সমালোচনা গায়ে মাখেননি। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু মানুষের এমন মনোবৃত্তিতে ক্ষুণ্ণ অভিনেত্রী স্বরা। করিনার পাশে দাঁড়িয়ে তিনিই পালটা দিলেন ওই নেটিজেনকে। জাতি-ধর্ম বিদ্বেষের নিন্দা করে তিনি লেখেন, আপনার মতো মানুষের যে এ দুনিয়ায় অস্তিত্ব রয়েছে, তা ভেবেই আপনার লজ্জিত হওয়া উচিত। ঈশ্বর আপনাকে মস্তিষ্ক দিয়েছে, যেখানে অজস্র ঘৃণা ভরে রেখেছেন। মুখ দিয়েছেন, যেখান থেকে মানবিক কোনও কথা বেরোয় না। এ ধরনের মনোভাব ব্যক্ত করে আপনি হিন্দুদের লজ্জায় ফেলে দিচ্ছেন।
তবে শুধু করিনাই নয়, কাঠুয়া কাণ্ডে আসিফার পাশে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে নেটদুনিয়ায় অনেককেই ট্রোলড হতে হয়েছে। সানিয়া মির্জাকে বিদ্রুপ করা হয়েছে একজন পাকিস্তানিকে বিয়ে করেছেন বলে। তবে সে সব নিন্দা কানে তুলছেন না তাঁরা। তাঁদের লক্ষ্যে তাঁরা স্থির। তাঁদের বিশ্বাস, এ দেশে ধর্ষণের বিরুদ্ধে একত্রিত হয়ে প্রত্যেককে রুখে দাঁড়াতে হবে। তবেই দেশ বদলাবে। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে প্রত্যেক অপরাধী যেন শাস্তি পায়। তবেই দেশের মেয়েরা নিরাপদে জীবনযাপন করতে পারবেন।